কতক্ষন সহবাস করা উচিৎ ও সহবাসের সঠিক নিয়ম

একজন পুরুষের কতক্ষন সহবাস করা উচিৎ এবং কিভাবে সহবাস করবেন, মাসিকের সময় কি করা যায়? সহবাসে কি ব্যাবহার করতে হয়, কখন মিলন করলে কি হয় বিস্তারিত জানতে আজকের লেখাটি পড়ুন।

কতক্ষণ সহবাস করা উচিত

সহবাস নিয়ে একটি ভ্রান্ত ধারনা সবার অন্তরে লালন করে আসছেন, খুব বেশি সময় সহবাস করায় বুঝি কোন পৌরুষত্ব আছে! মনে হয় ঘন্টা ব্যাপি সহবাস করতেই হয়! মুলত, ঘন্টা ব্যাপি সহবাসের কোন প্রয়োজন হয়না। একজন নারীকে ৭-১০ মিনিট সহবাস করে অরগাজম ঘটানো সম্ভব। আর কোন নারীর একবার অর্গাজম হয়ে গেলে, সারারাত আর সে উত্তেজিত হতে চায়না। খুব বিরল কিছু মহিলা আছেন যারা একই রাতে পুনরায় মিলন করার ইচ্ছা জাগে। তাই নিশ্চিত থাকতে পারেন যে, সারারাতে একবার মিলন করলেই যথেষ্ট। যদি আপনার স্ত্রীর অর্গাজম হয়ে থাকে।

স্ত্রী সহবাসের নিয়ম

স্ত্রী সহবাসের নিয়ম হলো কিছুদিন বিরতি দিয়ে স্ত্রীর শারীরিক অবস্থা বুঝে তাকে সহবাসে উৎসাহী করে তারপর একটি নির্দিষ্ট সময়ে সহবাসে লিপ্ত হওয়া। রোজরাতে সহবাস করে স্ত্রীকে বিরক্ত করলে, একসময় সহবাসের প্রতি স্ত্রীর আগ্রহ কমে যেতে পারে। এতে মধুর মিলন বিষাদে পরিনত হতে পারে। কারন, স্ত্রীর অনাগ্রহ থাকা স্বত্বেও যদি প্রতিদিন মিলন করেন, এটা বৈবাহিক ধর্ষনের মতোই একটা খারাপ আচরন হবে। তাই প্রতিদিন মিলনের আগে স্ত্রীর কাছ থেকে তার আগ্রহ জেনে নেয়া উচিৎ।

সহবাসের উত্তম সময় কখন

সহবাস করার উত্তম সময় রাতের শেষভাগে। কারন মিলন করার জন্য উপযুক্ত পরিবেশের প্রয়োজন, স্বামী-স্ত্রীর ফিসফিস গল্প অন্য কেও যেন না শুনে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। তাছড়া সহবাসের সময় কিছু অনাকাংখিত শব্দ হতে পারে, এগুলো বাহিরের কেও শুনে ফেলার ভয়ে সহবাসে বিঘ্ন ঘটতে পারে। তাই যৌন বিশেষজ্ঞ্রা মনে করেন, রাতের শেষ দিকেই সহবাসের উত্তম সময়।

সপ্তাহে কতবার সহবাস করা উচিত

সহবাস নিয়ে বেশ কিছু প্রশ্ন থাকে, এর মধ্যে সপ্তাহে কতবার সহবাস করা উচিত এইটা কমন একটি প্রশ্ন। একজন ২০-৩৫ বছর বয়সী যুবকের সপ্তাহে ২-৩ দিন পর্যন্ত মিলন করা স্বাস্থ্যকর অভ্যাস। আবার ৩৬-৫০ বছরের মধ্য বয়স্করা সপ্তাহে ২ দিনের বেশি সহবাস করা অনুচিত। ৫০ উর্ধো পুরুষেরা সপ্তাহে ১ দিন মিলন করতে পারলে তিনি সুস্থ্য বলে বিবেচিত। কিছু কিছু পুরুষ একটা ভুল করেন প্রতিদিনই সহবাসে লিপ্ত থাকার চেষ্টা করেন, যা স্বাস্থ্যের জন্য মোটেই ভাল নয়। তবে হ্যাঁ, যদি বাড়তি খাবারের যোগান থাকে পর্যাপ্ত, তাহলে সহবাসের হিসাবটা আলাদা হবে।

আমাদের দৈনন্দিন খাদ্য তালিকায় যেসব খাবার থাকে, সে হিসাবে উপরের মিলনের সংখ্যা ঠিক আছে। এর চেয়ে বেশি অর্থাৎ সপ্তাহে হিসাবের চেয়ে অতিরিক্ত মিলন করতে চাইলে একজন পুরুষ অবশ্যই বাড়তি খাবার খেতে হবে। যেমন- দুধ, ডিম, মাংস, পনির, খেজুর, মধু, ঘি ও হারবাল খাদ্য সামগ্রী ইত্যাদি। এগুলো খেয়ে সপ্তাহে ৪-৫ দিন একাধিকবার মিলন করা সম্ভব।

প্রতিদিন সহবাস করলে কি হয়

প্রতিদিন সহবাস করলে নারী পুরুষ সবার জন্যই ক্ষতিকর, কারন পুরুষের শরীরে বীর্য উৎপাদন হওয়ার সুযোগ না দিতে পারলে, বীর্য উৎপাদন ক্ষমতা হারিয়ে ফেলতে পারে। যৌন গবেষকদের মতে প্রতিদিন সহবাস করা পুরুষ ৫০ এর বেশি বয়স হলে স্ত্রী সঙ্গম করার ক্ষমতা হারায়। তবে কিছু পুরুষদের মধ্যে বারতি খাবারের যোগান দিয়ে দেখা গেছে, তারা অন্যদের চেয়ে ভিন্ন। অর্থাৎ এসব পুরুষরা ৬৫ বছর বয়স পর্যন্ত স্ত্রী সহবাস করার ক্ষমতা ধরে রেখেছিলো। সুতারাং বুঝাই যাচ্ছে, মিলনের জন্য বাড়তি খাবারটাই আসল উৎস। তারপরও চিকিৎসকদের মতে, প্রতিদিন সহবাস করা উচিৎ হবেনা।

মাসিক হওয়ার কত দিন পর সহবাস করা নিরাপদ

মাসিক শেষ হওয়ার পরদিন থেকেই সহবাস করতে পারেন। যদি মনে হয় আপনার স্ত্রীর মাসিক ঋতুচক্র শেষ হয়েছে। তবে সবচেয়ে ভালো উপায় হলো, মাসিক ঋতু শেষ হওয়ার ১-২ দিন পর সহবাস করা। কেও কেও বাচ্চা নিতে চাননা, তাদের জন্য সহবাসের নিরাপদ সময় অর্থাৎ এই সহবাস থেকে বাচ্চা হবেনা, এমন সময় হলো- মাসিকের শেষ দিন থেকে ২০ দিন পর্যন্ত। ২১ তম দিনে সহবাস করলে বাচ্চা হওয়ার কোন সম্ভবনা নাই। আর বাচ্চা নিতে চাইলে মাসিক শেষ হওয়ার পরদিন থেকে ১১ তম দিন পর্যন্ত প্রতিদিন ১-২ বার সহবাস করতে হবে।

গর্ভাবস্থায় সহবাস করার নিয়ম

গর্ভাবস্থায় সহবাস করার নিয়ম হলো- প্রথম ৩ মাস খুব সতর্কতার সাথে মিলন করতে হবে। যেন স্ত্রীর পেটে চাপ না পড়ে এবং শরীরে যেন কোন প্রকার ঝাকুনি না খায়। যদি কোন অবস্থায় এর ব্যতিক্রম হয়, তাতে গর্ভপাত হওয়ার ঝুঁকি থাকে। তাই যত সম্ভব, এই ৩ মাস মিলন না করেই থাকা উত্তম, শুধু সহবাসই নয়, গর্ভাবস্থার প্রথম ৩ মাস কোন ভারী কাজ করা যাবেনা।

গর্ভাবস্থার ৪র্থ মাস থেকে ৬ষ্ট মাস পর্যন্ত আবার স্বাভাবিক ভাবে সহবাস করা যাবে। তবে মিলনের পজিশন যেনো এমন না হয়, স্ত্রীর পেটে চাপ বা আঘাত না লাগে সেদিকে খেয়েল রাখতে হবে। কিছু কিছু পজিশন এড়িয়ে চলতে হবে, যেমন হাটু ভেঙ্গে সহবাস করা যাবেনা, স্ত্রীকে উপুর করে মিলন করতে পারবেননা। ডগি স্টাইল এড়িয়ে যাবেন, না হয় গর্ভের সন্তান উলটে যেতে পারে। স্বাভাবিক সনাতন নিয়মে স্ত্রী মিলনে তেমন কোন অসুবিদা নেই। ৭ম মাস থেকে প্রথম দিকের মতোই মিলন না করাই উত্তম, বা যদি করতেই হয়, তাহলে আগের নিয়মে খুব সাবধানতার সাথে সহবাস করবেন।

নিরাপদ ও সন্তুষজনক হারবাল চিকিৎসা

নিরাপদ ও সন্তুষজনক হারবাল চিকিৎসা নিতে চাইলে আমার হোয়াটসএ্যাপ 01719551547 এ যোগাযোগ করুন। ইনশাল্লাহ দেশব্যাপি অনেক যৌন রোগী আমার কাছ থেকে ঔষধ নিয়ে আলহামদুলিল্লাহ সুস্থ্য হয়েছেন। ১ মাসের জন্য ৩০ টি উচ্চক্ষমতা হারবাল ক্যাপসুল ৪৫০০ টাকা। দাম জেনে শিউর হয়ে যোগাযোগ করবেন। ইনশাল্লাহ সুস্থ হয়ে যাবেন।

পরিশেষে

কতক্ষন সহবাস করা উচিৎ ও সহবাসের সঠিক নিয়ম জেনে যদি উপকৃত হয়ে থাকেন, আমরা আনন্দিত। আমরা চাই কোন কিছুরই যেন অপব্যাবহার না হয়। প্রত্যেকটা জিনিসেরই কিছু লিমিট থাকে, তাই এদের অপব্যবহার হলে তা অল্পতেই শেষ হয়ে যায়। যে জন দিবসে মনের হরষে জালায় মোমের বাতি, আশু গৃহে তার জলিবেনা আর নিশিতে প্রদিপ বাতি। তাই যা করবেন, তার যোগান দিয়া রাখবেন, যোগান না থাকলে কম ব্যাবহার করবেন। কিছু জানার থাকলে কমেন্ট করবেন, কমেন্ট ছাড়া উত্তর দেয়া হয়না।

আরো পড়ুন- সহবাসের আনন্দ বাড়াতে যা করবেন

হারবাল ঔষধ কিনতে এখানে ক্লিক করুন

We will be happy to hear your thoughts

      Leave a reply

      হারবাল ঔষধ
      Logo
      Compare items
      • Total (0)
      Compare
      0
      Shopping cart